ঢাকাFriday , 1 December 2023
  • অন্যান্য

মাদারীপুর-৩ নির্বাচনী এলাকার মনোনয়ন পত্র জমা নিয়ে প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ। 

news
December 1, 2023 5:25 pm । ১১৬ জন
Link Copied!

মাদারীপুর-৩ নির্বাচনী এলাকার মনোনয়ন পত্র জমা নিয়ে প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ।

মাদারীপুর-৩ নির্বাচনী এলাকার আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ড.আবদুস সোবাহান মিয়া গোলাপের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছেন দুই স্বতন্ত্র প্রার্থী। অপরদিকে ঐ দুই সতন্ত্র প্রার্থীদের বিরুদ্ধেও নানা অভিযোগ করেন নৌকার সমর্থকরা।

শুক্রবার অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার উত্তম কুমার দাশ।

জানা যায়, মাদারীপুর জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ মারুফুর রশিদ খান বরাবর নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দুটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তাহমিনা বেগম এবং সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুজ্জামান। অভিযোগকারী দুজনেই দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে এই আসন হতে স্বতন্ত্রী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। অপরদিকে একই রকম ঘটনা সতন্ত্র প্রার্থী তাহমিনা বেগম ঘটিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন নৌকার সমর্থকরা।

সতন্ত্র প্রার্থীদের লিখিত অভিযোগে দাবী করা হয়েছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়মী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্ত বর্তমান সংসদ সদস্য ড.আবদুস সোবহান গোলাপ গাড়ীবহরসহ বহিরাগত ও তার অনুসারিদের সঙ্গে নিয়ে প্রভাব খাটিয়ে ব্যান্ড পার্টি, ঢোল, বাদ্য যন্ত্র, বাঁশি বাঁজিয়ে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন। যা নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গের সামিল।

এবিষয়ে অভিযোগকারী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বলেন, আমরা নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ দিয়েছি। আশা করি রিটার্নিং অফিসার আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

এদিকে নৌকার মনোনীত প্রার্থী মাদারীপুর-৩ আসনের বর্তমান এমপি ড.আবদুস সোবহান গোলাপ জানান, “আমি ঢাকা হতে প্রতিবারই নিজ এলাকায় আসার সময় ঢাকায় বসবাসকারী কালকিনির জনগন আমার সফর সঙ্গী হয়। এবারও তাই হয়েছে। আর কালকিনিতে প্রবেশের পথ একটাই, এখানে আমার সাথে গাড়িবহর নিয়ে কেউ নির্বাচন অফিসে মনোনয়ন জমা দিতে আসেনি। তাছাড়া মনোনয়ন পত্র দাখিলের সময় প্রায় অর্ধশত মিডিয়া কর্মী সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে প্রবেশ করে। ওখানেও বহিরাগত কেউ ছিল না। আর বাদ্যযন্ত্রের বিষয়টা নৌকা প্রেমী উৎসুক জনতা আমি মনোনয়ন পত্র জমা দিয়ে বের হয়ে চলে আসার পর হয়তো বাজিয়েছে।”

নৌকা প্রার্থীর সমর্থক কালকিনি পৌর মেয়র এসএম হানিফ বলেন, সতন্ত্র প্রার্থী তাহমিনা বেগমও ব্যান্ডপার্টি নিয়ে ২৯ নভেম্বর মনোনয়ন পত্র জমা দিতে আসেন এবং সাংবাদিকদের কাছে সাক্ষাৎকারও দেন। পরে অজানা কারণে তিনি সেদিন ফরম জমা দেননি। তাছাড়া দুই সতন্ত্র প্রার্থীদের ফরমে ভোটারদের সমর্থনে যে স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে তা আদৌ সত্যি কিনা সন্দেহ রয়েছে। তাই আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন করবো তাদের ফরমে স্বাক্ষরকারী প্রতিটি ব্যক্তিকে ডেকে এনে তা যাচাই করা হোক।

এ ব্যাপারে কালকিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাস বলেন, আচরণবিধি লঙ্ঘনের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তবে প্রার্থীদের স্বাক্ষরের সঠিকতা যাচাই কোন অভিযোগ এখনো আমার হাতে পৌঁছায়নি। এসব অভিযোগের আইনগত বিষয় খতিয়ে দেখার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।